শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ ||
  • প্রচ্ছদ
  • আন্তর্জাতিক >> এক্সক্লুসিভ >> গাজা >> ফিলিস্তান
  • নিরাপত্তা পরিষদে পাস হওয়া প্রস্তাব নিয়ে অসন্তুষ্ট হামাস
  • নিরাপত্তা পরিষদে পাস হওয়া প্রস্তাব নিয়ে অসন্তুষ্ট হামাস

    ফিলিস্তিনের যুদ্ধ বিধ্বস্ত গাজা উপত্যকায় ‘মানবিক সহায়তা’ প্রবেশ বিষয়ক একটি প্রস্তাব জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে পাস হয়েছে। তবে এই প্রস্তাবের যুদ্ধবিরতির কথা না বলায় গাজায় ইসরাইলের হামলা চলতে থাকবে বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। আর পাস হওয়া এ প্রস্তাব নিয়ে নিজেদের অসুন্তষ্টির কথা জানিয়েছে ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাসও।

    সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, ফিলিস্তিনের গাজায় সংঘাতে লিপ্ত সব পক্ষের প্রতি পর্যাপ্ত ত্রাণ সরবরাহের সুযোগ করে দেয়ার আহ্বান জানিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় শুক্রবার (২২ ডিসেম্বর) জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে।পরিষদে ১৫ সদস্যের মধ্যে ১৩টি সদস্য রাষ্ট্র প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয়। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়া এতে ভোট দানে বিরত ছিল।

    এ নিয়ে এক তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ম্যাসেজিং অ্যাপ টেলিগ্রামে দেয়া এক বিবৃতিতে হামাস বলেছে, ‘গাজায় মানবিক সহায়তা বৃদ্ধির যে কথা বলা হচ্ছে, সেটি সাধারণ মানুষের প্রয়োজনীয়তা মেটাতে পর্যাপ্ত নয়।’গাজা নিয়ন্ত্রণকারী এই সশস্ত্রগোষ্ঠী আরও বলেছে, গত পাঁচদিন ধরে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসন এই প্রস্তাবটির অস্তিত্ব (যুদ্ধবিরতি) খালি ও এমন দুর্বল আকারে প্রকাশ করতে কঠোর পরিশ্রম করেছে। এটি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ইচ্ছার বিরুদ্ধে গেছে এবং জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ আমাদের অসহায় সাধারণ মানুষকে ইসরাইলের আগ্রাসন থেকে বাঁচাতে যে চেষ্টা চালাচ্ছে, সেটির বিরুদ্ধে গেছে।’বিবিসির প্রতিবেদনে মানবিক সহায়তা পৌঁছানো নিয়ে শঙ্কার কথা জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। তিনি বলেন, গাজায় ইসরাইলের সামরিক অভিযান সহায়তা বিতরণে প্রতিবন্ধকতা হিসেবে কাজ করবে।এদিকে রাশিয়া প্রস্তাবটির ভাষা নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে। আরব আমিরাতও প্রস্তাবের ভাষা নিয়ে অসন্তুষ্টি জানিয়েছে। এই দুই সদস্য রাষ্ট্রের মতে অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির কথা প্রস্তাবে বলা হলেও, পরবর্তীতে যুক্তরাষ্ট্রের চাপে ভাষায় কাটছাট হয়।তবে জাতিসংঘে মার্কিন রাষ্ট্রদূত লিন্ডা টমাস গ্রিনফিল্ড জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে মধ্যপ্রাচ্যের পরিস্থিতি নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর বলেছিলেন, ‘আপনাদের এ বিষয়ে অবগত করতে চাই যে, গত সপ্তাহে সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিশর ও ও অন্যান্যদের সঙ্গে, আমরা সমর্থনযোগ্য একটি প্রস্তাব নিয়ে কঠোর পরিশ্রম করেছি। আমরা এর পক্ষে ভোট দিতে প্রস্তুত।’নিরাপত্তা পরিষদে গত সপ্তাহে (১৫ ডিসেম্বর) একটি খসড়া প্রস্তাব উত্থাপন করে সংযুক্ত আরব আমিরাত। প্রস্তাবে গাজা উপত্যকায় সংঘাত বন্ধ ও মানবিক ত্রাণ সহায়তার অব্যাহত সরবরাহ নিশ্চিত করার আহ্বান জানানো হয়। একই সঙ্গে অবিলম্বে ইসরাইলের সব জিম্মিকে মুক্তি দেয়ার আহ্বানও জানানো হয়।খসড়া ওই প্রস্তাবে বলা হয়, ‘গাজায় অবিলম্বে সব হামলা বন্ধ করতে হবে, বন্দিদের বিনা শর্তে মুক্তি দিতে হবে এবং গাজার সাধারণ মানুষের কাছে বিপুল ত্রাণ পৌঁছানোর ব্যবস্থা করতে হবে।’আন্তর্জাতিক আইনের অধীনে সংঘাতের সব পক্ষকে অবশ্যই তাদের বাধ্যবাধকতা মেনে চলতে হবে তা নিশ্চিত করার কথাও খসড়ায় বলা হয়।আল জাজিরার প্রতিবেদন অনুযায়ী প্রস্তাবটি এমন সময় পাস হয়েছে, যখন ইসরাইলের আগ্রাসনে গত দুই দিনে ৩৯০ ফিলিস্তিনি নিহত ও ৭৩৪ জন আহত হয়েছেন।

    আরও পড়ুন

    error: Please Contact: 01822 976776 !!