রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ ||
  • প্রচ্ছদ
  • ছাগলনাইয়া >> দাগনভূঞা >> পরশুরাম >> ফুলগাজী >> ফেনী >> ফেনী সদর >> সোনাগাজী
  • ফেনীতে করোনায় স্বাস্থকর্মীসহ ২ জনের মৃত্যু
  • ফেনীতে করোনায় স্বাস্থকর্মীসহ ২ জনের মৃত্যু

    ফেনীতে উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হওয়া দুই ব্যক্তির করোনা পজেটিভ এসেছে। এদের মধ্যে একজন স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন। সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাদ হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, এই প্রথম জেলায় করোনায় মৃত্যু হয়েছে।
    জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, শনিবার রাতে দুই দফায় ৩১ জনের নমুনা পরীক্ষারর প্রতিবেদন আসে। এদের মধ্যে নমুনায় চিকিৎসক-পুলিশ ছাড়াও দুইজন মৃত ব্যক্তি রয়েছেন। এদের একজনের বাড়ি সদর উপজেলার পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের বিজয়সিংহ ও অপরজন সোনাগাজী উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের মজুপুরে।

    সোনাগাজী উপজেলা স্বান্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মবর্তা ডা. উৎপল দাস জানান, উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের মজুপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের হেলথ প্রোভাইডর দীর্ঘদিন লিভার ক্যান্সার, ডায়াবেটিস রোগে ভুগছিলেন। গত প্রায় একমাস তিনি ছুটি নিয়ে রাজধানীর ইবনেসিনা হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১০ মে তিনি মারা যান। তার ১ ছেলে ও ১ মেয়ে রয়েছে। করোনা পরীক্ষার জন্য তার নমুনা সংগ্রহ করা হলে পজেটিভ আসে।

    এছাড়া পশ্চিম বিজয়সিংহ গ্রামের পঞ্চাশোর্ধ নারী শ্বাসকষ্ট নিয়ে গত সোমবার সকালে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। ওইদিন রাত ৯টার হাসপাতালে তিনি মারা যান। তার তিন ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে। পরদিন সকালে নামাজে জানাযা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দু’জনের বাড়ী সহ আশপাশের এলাকা লকডাউন করা হয়েছে। লকডাউন হওয়া পরিবারগুলোকে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে খাদ্য সরবরাহ করা হবে।

    জেলার সদর উপজেলায় ২২ জন, পরশুরামে ৪ জন, ছাগলনাইয়ায় ১৩ জন, দাগনভূঞায় ৯ জন, সোনাগাজী উপজেলায় ৬ জন ও ফুলগাজী উপজেলায় ৪ আক্রান্ত হয়েছেন। পাশ্ববর্তী উপজেলা মিরসরাই্, চৌদ্দগ্রাম ও সেনবাগের ৩ বাসিন্দা ফেনী জেনারেল হাসপাতালে নমুনা পরীক্ষা করে আক্রান্ত হয়েছেন। ইতিমধ্যে ৮ জন সুস্থ ও ২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

    এ পর্যন্ত ১ হাজার ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি), চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় এবং নোয়াখালী আবদুল মালেক মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়। শনিবার পর্যন্ত ৮শ ৭৪ জনের ফলাফল পাওয়া যায়।

    আরও পড়ুন

    error: Please Contact: 01822 976776 !!